NURJAHAN BEGUM

শুভ জন্মদিন নুরজাহান বেগম, একজন প্রথিতযশা সাংবাদিক এবং উপমহাদেশের প্রথম নারীকেন্দ্রিক পত্রিকা ‘বেগম’ –এর সম্পাদক।

বেগম -এর জন্মলগ্ন ১৯৪৭ সাল, আমাদের ইতিহাসের এক কালজয়ী মুহূর্ত। নূরজাহানের বাবা, প্রখ্যাত সাংবাদিক নাসির উদ্দিন পত্রিকাটির প্রতিষ্ঠাতা। মেয়ের জীবনে বাবা ছিলেন এক বিশাল অনুপ্রেরণার অংশ। সে আমলে যখন খুব কম মুসলিম পরিবার তাদের কন্যা সন্তানের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার কথা ভাবতেন, নূরজাহান সে সময়ে স্কুলে যাওয়ার সুযোগ পান। তিনি বেগম রোকেয়া নির্মিত সাখাওয়াত মেমোরিয়াল গার্লস হাইস্কুলের ছাত্রী ছিলেন। ভাবতেই ভাল লাগে কি করে একজন সুপারগার্ল অন্য একজন সুপারগার্লকে অনুপ্রাণিত করেছিলেন। খুব ভুল হবে কি যদি মনে করি বেগম রোকেয়ার নিরলস পরিশ্রম আর সংগ্রামের ফসল এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ার সুযোগ পেয়েছিলেন বলেই নূরজাহান জীবনে এতদূর এগুতে পেরেছিলেন। তিনিও কিন্তু আরও অনেক মেয়েদের জন্য তাদের লক্ষ্যে পৌঁছাবার পথ করে দিয়েছিলেন। তাঁর প্রতিষ্ঠিত বেগম ক্লাব থেকে পরবর্তীতে আরও অনেক জনপ্রিয় লেখিকার আবির্ভাব হয় এবং তাঁদের লেখনী অন্যদের কাছে পৌঁছে যায় বেগম পত্রিকার মাধ্যমে। সুদীর্ঘ জীবনে তিনি অনেক পুরস্কারে ভূষিত হন যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য বেগম রোকেয়া পদক (১৯৯৫) এবং একুশে পদক (২০১১)।

আজ তাঁর জন্মদিনে আমরা স্মরণ করছি এই গুণী সাংবাদিককে নারীর অধিকার আদায়ে তাঁর নিরলস পরিশ্রমের জন্য এবং অন্য আরও অনেকের জন্য জীবনে নতুন দুয়ার খোলার জন্য।

চিত্রশিল্পীঃ নাইমা হক

June 04, 2018

Happy Birthday, Nurjahan Begum! We celebrate the trailblazing journalist and Editor of subcontinent's first women-centric magazine: Begum.

The groundbreaking magazine was founded by Nurjahan's father, Nasir Uddin, a seasoned journalist, in 1947 during a very conservative political climate in Bengal. As a parent, he gave a lot of his time and effort to ensure that Nurjahan was given the best possible education, in and out of scholl. This was radical at the time when a daughter’s education was considered unnecessary at best.

Nurjahan went to the legendary Sakhawat Memorial School, built by Rokeya Sakhawat Hossain. It’s wonderful to see how one Supergirl influenced another. Thanks to Begum Rokeya’s relentless effort to establish the first school for Muslim women, Nurjahan was enabled to live out her full potential, and likewise, she paved paths for many other women. As the Editor of Begum, she gave women the opportunity and courage to write, take photographs and illustrate. The magazine acted like an older sister to its readers; offering consolation, knowledge, and inspiration.

She also established the Begum Club –a nurturing common ground for many women to share stories and know-how. A number of female writers emerged from the club and could connect with their audience through the magazine. Among many awards, Nurjahan Begum received the Begum Rokeya Award in 1995 and the Ekushey Padak in 2011.

On her Birthday, we remember her for her remarkable courage to advocate women's rights and help other women in their creative, public and personal aspirations.

Painting by Naima Haque